সোমবার, ১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

মঞ্চে গান গেয়ে দর্শক মাতালেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী

এবার গান গাইলেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ড. মো. মুরাদ হাসান। অভিনয়শিল্পী সংঘের সাধারণ অভায় রকস্টারের মতে রকস্টারের মতো নাচে-গানে মাতোয়ারা করে দিয়েছেন উপস্থিত দর্শক-স্রোতা-অতিথিদের।

এদিন অভিনয়শিল্পী ও রাজনীতিক যুগলের গানে মুহুর্মুহু করতালিতে ভরে উঠেছিল শিল্পকলার মূল মিলনায়তন।

জানা যায়, রকস্ট্রিট নামে একটি ব্যান্ড দলও আছে রকস্টার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদের। নিজেই জানালেন সে কথা। সেই ব্যান্ডের লিড ভোকালিস্ট তিনি। প্রতিমন্ত্রী এটাও জানালেন, এই নাট্যশালায় নিজের দলের কনসার্ট করবেন।

মঞ্চে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমি শুধু ডাক্তার নই, আমি গায়কও। হয়তো সবাই ভেবেছিলেন প্রতিমন্ত্রী বুঝি গান গাইতে চেয়েছেন শখ করে।

যদিও কয়েকদিন আগে একটি ভিডিও ভাইরাল প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদের। সেই ভিডিওতে তাকে গাইতে দেখা গেছে। ভিডিওটি সত্যিই প্রতিমন্ত্রীর কিনা তা নিয়েও সন্দিহান ছিলেন অনেকে।

অভিনয়শিল্পী সংঘের অনুষ্ঠানের বক্তৃতার পালা শেষ হয়ে যাওয়ার পর শুরু হলো সংগীতানুষ্ঠান। চলল একের পর এক। মঞ্চে উঠলেন অভিনেত্রী তারিন ও প্রতিমন্ত্রী মুরাদ। দুজন কণ্ঠ মেলালেন একসঙ্গে। গাইলেন, ‘আমায় ডেকো না, ফেরানো যাবে না, ফেরারি পাখিরা…’

দেয়ালে হতে লাগল প্রতিধ্বনি। মুগ্ধতা বেড়ে গেল দর্শকদের, সেই সঙ্গে চাহিদা। গানের অনুরোধ পেতে থাকলেন ডা. মুরাদ। এবার তিনি একা দাঁড়ালেন। কি-বোর্ড, ড্রাম, প্যাড, লিড গিটার, বেজ গিটার চেক করে নিলেন। চলে এলেন মঞ্চের একেবারে সামনে, চিরপরিচিত রকস্টারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হলেন। গাইলেন— ‘ওই দূর পাহাড়ের ধারে, দিগন্তেরই কাছে, নিঃসঙ্গ বসে একটি মেয়ে, গাইছে আপন সুরে…’।

এরপর একের পর এক গান গাইতে শুরু করলেন তিনি। ক্লান্তিহীন কণ্ঠে এবার গাইলেন আজম খানের বিখ্যাত গান, ‘রেললাইনের ওই বস্তিতে, জন্মে ছিল একটি ছেলে, মা তার কাঁদে….’।

ততক্ষণে সামনের সারির দর্শকরা উঠে পড়েছেন। প্রতিমন্ত্রীর গানের সুরে অভিনেত্রী ঊর্মিলা শ্রাবন্তী, বিজরী বরকতুল্লাহ, সুইটিসহ অনেক অভিনেত্রীদের নাচে মেতে উঠতে দেখা যায়।

চিত্রজগত/মঞ্চ

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

এই সপ্তাহের পাঠকপ্রিয়