সোমবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

সুবর্ণা মুস্তাফার জন্মদিন আজ

অভিনয় জগতে এক অনন্য নাম সুবর্ণা মুস্তাফা। আশির দশকে দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় টিভি তারকা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন নিজেকে। পরবর্তীতে রুপালি পর্দায় ছিলেন সরব। অভিনয়ের স্বীকৃতি হিসেবে পান ‘একুশে পদক’। পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও। আজ (২রা ডিসেম্বর) তার ৬৩তম জন্মদিন।

ছোট পর্দা বা বড় পর্দা দুই ভুবনেই সমান জনপ্রিয়, সাংস্কৃতিক মাঠ থেকে রাজনৈতিক মাঠ সবখানে সরব, তিনি সুবর্ণা মুস্তাফা। সাংস্কৃতিক পরিবারে জন্ম সুবর্ণা মুস্তাফার বাবা প্রখ্যাত অভিনেতা গোলাম মুস্তাফা, মা ছিলেন বেতার কর্মী। মায়ের হাত ধরেই বিনোদন জগতে পা রাখেন নন্দিন এই অভিনেত্রী।

শিশু শিল্পী হয়ে নিয়মিত ছিলেন নাট্যপ্রাঙ্গণে। স্কুলের গণ্ডি শেষের আগেই টেলিভিশন নাটকে আসেন নায়িকার চরিত্রে।

আশির দশকে শক্তিমান অভিনেতা হুমায়ুন ফরীদী ও আফজাল হোসনের সাথে সুবর্ণার জুটি লুফে নেয় দর্শক। নাট্যজগতে সুবর্ণা-আফজাল রসায়ন বাংলা নাটকে অম্লান হয়ে আছে আজও।

১৯৮০ সাল সময়ের এগিয়ে যাওয়া সাহসি গল্প নিয়ে সালাউদ্দীন জাকী সুবর্ণা-আসাদকে জুটি করে নির্মাণ করেন চলচ্চিত্র ‘ঘুড্ডি’।

সিনেমা– নাটক- মঞ্চ; সবখানে সুবর্ণা দাপিয়ে বেড়িয়েছেন সমান তালে। ‘নয়নের আলো’, ‘নতুন বউ’, ‘লাল সবুজের পালা’, ‘সুরুজ মিয়া’, ‘শঙ্খনীল কারাগার’, ‘রাক্ষস’, ‘অপহরণ’, ‘স্ত্রী’, ‘দূরত্ব’ পালাবি কোথায় সিনেমায় সুবর্ণার অভিনয় হাল আমলের দর্শকেরও প্রিয়।

নাটকে সুবর্ণার অভিনয় এখনো অপ্রতিদ্বন্দ্বী। পারলে না রুমকী, কোথাও কেউ নেই, আজ রবিবারসহ অসংখ্য কালজয়ী নাটকের অভিনেত্রী তিনি।
এসেছেন রাজনীতিতেও। সবশেষ ঢাকা-২২ সংরক্ষিত আসন থেকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের, মনোনয়ন নিয়ে হয়েছেন সংসদ সদস্য।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ