সোমবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

লতা মঙ্গেশকর: ‘নাইটিঙ্গেল অব ইন্ডিয়া’

বলিউডের সঙ্গীত জগতের কিংবদন্তী সঙ্গীত শিল্পী লতা মুঙ্গেশকর পরলোকে চলে গেলেন। ‘নাইটেঙ্গেল অব ইন্ডিয়া’র খ্যাত সঙ্গীতের মহাতারকার সুর চিরতরে থেমে গেল। উপমহাদেশের সঙ্গীতের সবচেয়ে প্রবীণ ও কোকিল কন্ঠী শিল্পীর গান আর রেকর্ড হবে না। গাইবেন না আর বলিউড হিন্দী সিনেমার স্টুডিওতে। তাঁর গানের সুরের মোর্ছনায় আর ঝড় তুলবেন না বলিউডের কোন নায়িকা। তার গান শুনে মোহিত হতেন যে দর্শক, সেই দর্শক তার রের্কডের গান শুনেই প্রিয় শিল্পীকে দেশের কোটি কোটি ভক্ত লতাজিকে স্মরণ করবে।

বাংলাদেশের মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গব্ন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর সঙ্গে সুর সম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকর – ছবি সংগ্রহ: মোস্তাফিজুর রহমান মিন্টু।

করোনা আক্রান্ত হয়ে প্রায় ৪ সপ্তাহ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন লতা মঙ্গেশকর। চিকিৎসায় অনেকটা সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন। এরই মধ্যে শনিবার (৫ ফেব্রুয়ারি) হঠাৎ তার শরীরের অবস্থা অবনতি হতে শরু হলে দ্রুত ভেন্টিলেশনে নেওয়া হয়। কিন্তু দুর্ভাগ্য যে, সেই অবস্থা থেকে আর ফেরানো যায়নি লতাজিকে। রবিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) সকাল সোয়া আটটার দিকে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে যান পরলোকে। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯২ বছর। জানাগেছে, সাম্প্রতিক সময়ে তিনি বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতায় ভুগছিলেন, ইতিপূর্বে একাধিক বার হাসপাতলে ভর্তি ছিলেন।

যাদুময়ী কন্ঠের প্রখ্যাত এই সুর তারকার চির প্রস্থানে শুধু ভারত নয়, প্রতিবেশী বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্বে শোকের ছায়া নেয়ে আসে। তার মৃত্যুতে ব্যথিত হয়েছে বিশ্বের ভক্ত—অনুরাগীরা। তাঁর মৃত্যুতে বিভিন্ন মহল শোক জানিয়েছেন। বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। ভরতের প্রধান মন্ত্রী নরেন্দ্রমোদি লতাজির মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন ‘আমি শোকে স্তব্ধ। দয়ালু ও যত্নশীল লতা দিদি আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন। তিনি জাতির জন্য যে, শুন্যতা রেখে গেছেন তা পূরণ হবার নয়।’

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেসার সঙ্গে সর্ব বামে লতা মঙ্গেশকর (কালো পার্স হাতে) -ছবি সংগ্রহে: মোস্তাফিজুর রহমান মিন্টু

শিল্পীর প্রয়াণে ভারতে দু’দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করা হয়েছে। এ সময় জাতীয় পতাকা অর্ধ নমিত থাকবে। রবিবার সন্ধ্যায়ই মুম্বাইয়ের শিবাজি পার্কে পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তার শোককৃত্য সম্পন্ন হয়েছে। লতার মরদেহে মালা দিয়ে শেষ শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। লতার পরিবারের সদস্যরা ছাড়াও এসময় উপস্থিত ছিলেন দেশের সঙ্গীত, চলচ্চিত্র, ক্রীড়াঙ্গনের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা। তার জন্ম এক মারাঠি পরিবারে।

অভিনয় থেকে পেশা জীবন শুরু করলেও পরবর্তীতে তিনি ভারতের কিংবদন্তী গায়িকা হয়ে ওঠেন লতা মঙ্গেশকার। ‘নাইটিঙ্গেল অব ইন্ডিয়া’ বলে আখ্যা পাওয়া লতা মঙ্গেশকর অর্ধশত বছরের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে ভারতের ৩৬টি ভাষায় প্রায় ৩০ হাজার গান গেয়েছেন। দশকের পর দশকজুড়ে তিনি ছিলেন ভারতের সবচেয়ে বেশি চাহিদাসম্পন্ন সঙ্গীত শিল্পী। বলিউডের প্রত্যেক শীর্ষ অভিনেত্রী চাইতেন, চলচ্চিত্রে তাদের গানটি যেন তাকে দিয়ে গাওয়ানো হয়।

উল্লেখ্য ১৯২৯ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর লতার জন্ম। মাত্র ১৩ বছর বয়সে তার বাবাকে হারান। এই বাবার হাত ধরেই অভিনয় ও গান শিখা শুরু করেছিলেন। মারাঠি ছবিতে ১৩—১৪ বছর বয়সে প্রথম চলচ্চিত্রে গান গাওয়া শুরু। পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে তিনি ছিলেন সবার বড়। তাঁর অন্য ভাইবোনেরাও তার পদাঙ্ক অনুসরণ করেছেন এবং তাঁরাও ভারতের নামকরা গায়ক-গায়িকা হয়েছেন। ১৯৪৮ সালে মুম্বাই যাওয়ার পর প্রথম ‘মজবুর’ ছবিতে হিন্দি গান করেন। ১৯৪৯ সালে মহল চলচ্চিত্রে গান গাওয়ার পর থেকে তিনি সবার নজরে চলে আসেন।

সুর সম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকর ২০০১ সালে ভারতের রাষ্ট্রীয় সম্মাননা ‘ভারতরত্ন’ অর্জন করেন। ১৯৮৯ সালে তিনি ‘দাদা সাহেব ফালকে’ পুরষ্কার লাভ করেন। তিনি অর্ধশত বছরের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে ভারতের ৩৬টি ভাষায় প্রায় ৩০ হাজার গান গেয়েছেন। তার অন্যতম শখ ছিলো ক্রিকেট খেলা দেখা। ক্রিকেটের একজন গোঁড়া সমর্থক ছিলেন তিনি। অনেক সময় রেকর্ডিংয়ে বিরতি দিয়ে টেস্ট ম্যাচ খেলা দেখতে গিয়েছেন। রোলেইফ্লেক্স ক্যামেরা দিয়ে ছবি তোলা। মন চাইলে নিজে রান্না করে খেতেন এই সুর যাদুকরী।

লতা মঙ্গেশকর মোজার্ট, বিথোভেন, চোপিন, নাট কিং কোল, বিটলস, বারব্রা স্ট্রেইস্যান্ড এবং হ্যারি বেলাফন্টের সংগীত শুনতে পছন্দ করতেন। মঞ্চে মার্লিন ডিয়েট্রিচের গান গাওয়া দেখতে গিয়েছিলেন তিনি এবং ইনগ্রিড বার্গম্যানের থিয়েটার দেখতে ভালোবাসতেন। তিনি সিনেমা দেখতেও পছন্দ করতেন। তার পছন্দের হলিউডি চলচ্চিত্র ছিল ‘দি কিং এন্ড আই’, যা তিনি অন্তত ১৫ বার দেখেছেন বলে জানিয়েছেন। আরেকটি পছন্দের চলচ্চিত্র হচ্ছে ‘সিঙ্গিং ইন দ্যা রেইন’।

তিনি গাড়ি ভালোবাসতেন। জীবনের নানা পর্যায়ে তিনি ধূসর রঙের হিলম্যান এবং নীল শেভ্রোলেটের মালিক হয়েছেন, ক্রাইসেলার এবং মার্সিডিজও ছিল। বাড়িতে তার নয়টি কুকুর রয়েছে।

চিত্রজগত/স্মরণীয় বরণীয়

সংশ্লিষ্ট সংবাদ