শুক্রবার, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

যে ৫ খাবার শরীরের ক্লান্তি কমানোর চেয়ে আরো বাড়িয়ে দেয়

সময় মতো পর্যাপ্ত খাবার খাওয়ার পরেও অনেকসময় শরীরে ক্লান্তি চলে আসে। তাই সারাদিন কর্মচঞ্চল থাকতে পুষ্টিবিদরা স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার পাশাপাশি সহজপাচ্য খাবার সঠিক সময়ে খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। আবার খাবার যদি সঠিক ভাবে হজম না হয় শরীরের ওপর সেটারও প্রভাব পড়ে। কিছু খাবার খাওয়ার পর শরীরে কর্মচঞ্চলতা তো আসেই না ক্লান্তি যেন ঘিরে ধরে, দুর্বল লাগে। সে রকম কিছু খাবার সম্পর্কেই আজ জেনে নেয়া যাক।

১) কফি: দীর্ঘ ক্ষণ কাজের পর নিজেকে তৎক্ষণাৎ চনমনে করে তুলতে কফির কাপে চুমুক দেন অনেকেই। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কফি ক্লান্তি দূর করার বদলে আরো বৃদ্ধি করে। ক্লান্তি দূর করতে কফির চেয়ে চা অনেক বেশি উপকারী।

২) চিজ: চিজে রয়েছে উচ্চমাত্রার স্যাচুরেটেড ফ্যাট, সোডিয়াম এবং কোলেস্টেরল। চিজ খেতে ভাল লাগলেও চিজ দ্রুত হজম হতে চায় না। তাই যখন এমনিতেই শরীর ক্লান্ত রয়েছে, তখন চিজ না খাওয়াই ভাল।

৩) সাদা চিনি: চিনি সাময়িক ভাবে শক্তি জোগালেও পরবর্তীতে শরীরে এর বিরূপ প্রভাব পড়ে। তাই যখন শরীর ক্লান্ত বা দুর্বল লাগছে সেই সময় আইসক্রিম, পেষ্ট্রির মতো চিনি সমৃদ্ধ খাবার এড়িয়ে চলুন।

৪) সোডা জাতীয় পানীয়: গরমে গলা ভেজাতে সোডা জাতীয় পানীয় বেশ জনপ্রিয়। কিন্তু এই ধরনের রঙিন পানীয় খাওয়ার প্রবণতায় শরীরে ক্ষতিই বেশি হয়। এগুলি প্রাথমিক ভাবে ক্লান্তিনাশক মনে হলেও আসলে এই জাতীয় পানীয় সবচেয়ে বেশি ক্লান্তিকর।

৫) অ্যালকোহল: ছুটির দিনে বন্ধুদের সঙ্গে হইহুল্লোড়ে মেতে উঠতে বা ঘরোয়া কোনো উৎসব উদযাপনে মদ্যপান অনেকেই করে থাকেন। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় শরীরে একটা ক্লান্তি ডেকে আনে।

তাই শরীর সবসময় কর্মতৎপর এবং মনকে সবসময় ফুরফুরে রাখতে এ পাঁচ খাবার এড়িয়ে চলাই শ্রেয়।

চিত্রজগত/লাইফ স্টাইল

সংশ্লিষ্ট সংবাদ